Friday , 23 February 2018
Home স্বাস্থ্য সকালে ঘুম থেকে ওঠা কতটুক উপকারি জেনে নিন

সকালে ঘুম থেকে ওঠা কতটুক উপকারি জেনে নিন

সকালে ঘুম থেকে উঠা ভাল তা কেনা জানে। সকালে দেরি করে ঘুম থেকে না উঠতে পারায় মার বকা ও মার হাতে কতই না মার খেতে হয়েছে। সকালে ঘুম থেকে উঠলে শরীর মন দুটিই ভাল থাকে। এমনটাই তো জেনে আসেছি।

কিন্তু প্রতিদিন ভোরে ঘুম থেকে ওঠা কি সত্যি স্বাস্থ্যের জন্য ভালো। আসলে আমরা সবাই সকালে ঘুম থেকে উঠতে পারি না। অনেকে সকালে ঘুম থেকে উঠে অভ্যস্থ। তাদের জন্য ভোরে ঘুম থেকে ওঠা স্বাস্থ্যকর। যারা অভ্যস্থ না তাদের নিজেদেরকে জোর করা উচিত নয়। অনেকে হয়তো অবাক হচ্ছেন। কিন্তু কেন উচিত না চলুন জেনে নিই।

এটি আপনার সুখ কমিয়ে দিতে পারে :
এমনটাই জানানেন সারকাডিয়ান নিউরো বিজ্ঞানী রাসেল ফস্টার, কোনও গবেষণায় পাওয়া যায়নি যে ভোরবেলা ঘুম থেকে উঠলে আপনার কর্মক্ষমতা বাড়বে। ভোরবেলায় ঘুম থেকে উঠার অভ্যাস থাকার অর্থ এই না যে আপনি ধনী হতে পারবেন। ভোরে ঘুম থেকে উঠা ও দেরীতে উঠার অভ্যাস আপনার আর্থ-সামাজিক অবস্থা নির্ধারণ করে না। গ্যালাপের এক পরিসংখ্যানে দেখা গেছে যে যারা পর্যাপ্ত পরিমাণ ঘুমাতে পারেন তারাই সবচেয়ে বেশি সুখী।

এটা আপনার জৈবিক প্রকৃতির বিপরীত :
ঘুমের ডাক্তার নামে পরিচিত মাইকেল ব্রিউস বলেন, আমাদের দেহে সারাদিনের কোন কাজ কখন করবে সে প্রোগ্রাম করে রাখাই আছে। এটা ব্যক্তিভেদে ভিন্ন। একেক জনের দেহঘড়ি একেক রকম। ব্রিউস চার প্রকার ঘুমের অভ্যাস নিয়ে আলোচনা করেছেন। ডলফিন, সিংহ, ভাল্লুক ও নেকড়ে।

ক. সিংহরা সকালে সূর‌্য উঠার সঙ্গে সঙ্গে ঘুম থেকে উঠে।

খ. ভাল্লুকরা রাতে ঘুমায় ও দুপুরে ঘুম থেকে উঠে।

গ. ডলফিনরা কখনও ভালোভাবে ঘুমায় না। যখন সে ঘুমায় তার মস্তিষ্কের অর্ধেক অংশ জেগে থাকে।

ঘ. নেকড়েরা সারারাত জেগে থাকে। তারা সে সময় বেশি কর্মক্ষম থাকে।

আমাদের শরীর নির্ধারণ করে দিনের কোন অংশে আমরা কর্মক্ষম থাকবো। অধিকাংশ মানুষই সকালে ঘুম থেকে উঠতে পারে না। আপনি যদি সিংহ না হন তাহলে প্রয়োজন নেই সকালে ঘুম থেকে উঠার।

আপনার কর্মক্ষমতা হারাতে পারে :
অস্বাভাবিক সময়ে ঘুম থেকে উঠলে পর্াপ্ত পরিমাণে ঘুম থেকে মানুষ বঞ্চিত হয়। যখন আপনি ক্লান্ত থাকবেন আপনার কর্মক্ষমতা কমবে। সবকিছু আপনার কাছে বিরক্তিকর মনে হবে এবং কাজ করতে ভালো লাগবে না।

ঘুম যদি পরিমাণে কম হয় তবে আপনি নেশায় আসক্ত হয়ে যাবেন। গবেষণায় দেখা গেছে যে যারা টানা ১৭ থেকে ১৯ ঘন্টা টানা কাজ করে তাদের থেকে যারা পর্যাপ্ত পরিমাণের বিশ্রাম পায় তারা বেশি কাজ করতে পারে।

যাদের ভোরে ঘুম থেকে উঠার অভ্যাস রয়েছে তাদের জন্য সে সময়ে ঘুম থেকে উঠা স্বাস্থ্যকর। কিন্তু আপনার যদি এ অভ্যাস না থাকে তাহলে প্রয়োজন নেই সকালে ঘুম থেকে উঠার। এতে আপনার ঘুমের যে চক্র তাতে ব্যাঘাত ঘটে এবং আপনার সুখ কমিয়ে দেয়।

ট্যাগ সমূহঃ
আ/জ/প্র | Published On:May 14, 2017

❝আরো পড়ুন❞

➧কোথায় সেক্স করে আনন্দ?

➧কী কী খেলে নারীর যৌনাঙ্গ সুস্থ-স্বাভাবিক থাকে

➧সঙ্গী কি আপনাকে ঠকাচ্ছে? কি করে বুঝবেন?

➧এই ভয়ানক ভুলগুলি করে বসেন অনেক দম্পতিই!

➧শারীরিক মিলনে যে কাজ করলে রেগে যেতে পারেন স্ত্রী

➧মিলনে নারীকে খুশি করার টিপস্ ! জেনে নিন…

❝এই বিভাগের আরো পোস্ট পড়ুন❞

  • ➧মায়ের রক্তোচ্চাপই নির্ধারণ করে দেবে শিশুর লিঙ্গ

  • ➧লম্বা হওয়ার কিছু সাধারন উপায়

  • ➧৪০% রোগীদের ফুসফুস ক্যান্সার শেষ পর্যায়ে গিয়ে ধরা পড়ে

  • ➧হাঁপানিতে অনেক সময় শিশুদের রোগমুক্ত করা সম্ভব

  • ➧আপনার ঘরেই রয়েছে ডেঙ্গির ওষুধ !